অধিকরণ কারক – সপ্তমী বিভক্তি (সংস্কৃত)

সংস্কৃত অধিকরণ কারক – সপ্তমী বিভক্তির সকল নিয়ম সহজ – সরল এবং আধুনিক পদ্ধতিতে উদাহরণ সহযোগে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হল ।

অধিকরণ কারকে সপ্তমী বিভক্তি

ক্রিয়ার আধারকে অধিকরণ কারক বলে । এই কারকে সপ্তমী বিভক্তি হয় ।

সংস্কৃত অধিকরণকারক – সপ্তমী বিভক্তির নিয়মগুলি সহজভাবে বাংলায় সূত্রের সহ তুলে ধরা হল । এগুলি তোমরা ভালোভাবে তৈরী করলে অধিকরণকারক – সপ্তমী বিভক্তি যে কোনো উদাহরণ তোমরা অনায়াসেই করতে পারবে ।

অধিকরণ কারকে সপ্তমী বিভক্তি

সূত্র – আধারোহধিকরণম্ ।

অর্থাৎ, ব্যাক্যের ক্রিয়া পদ যাকে আশ্রয় করে থাকে তাই আধার বা অধিকরণ । এই কারকে সপ্তমী বিভক্তি হয় ।

ক্রিয়ার আধার তিন প্রকার । যথা –

(i)অভিব্যাপক – তিলেষু তৈলম্ অস্তি ।

(ii)ঐকদেশিক – ব্যাঘ্রঃ বনে বসতি ।

(iii)বৈষয়িক – বিদ্যায়াম্ অনুরাগঃ ।

সপ্তমী বিভক্তি

অবচ্ছেদে সপ্তমী বিভক্তি

সূত্র – অবচ্ছেদে সপ্তমী ।

শরীরের কোনো অঙ্গকে পৃথক্ করে গ্রহণ করার নামই হল অবচ্ছেদ । এই অবচ্ছেদে সপ্তমী বিভক্তি হয় ।

উদাহরণ – সা করে ধৃত্বা মাম্ অবদৎ ।

বাক্যটির অর্থ হল – সে (স্ত্রীলোক) হাতে ধরে আমাকে বলেছিল । এখানে হাত শরীরের একটি অঙ্গ এবং এই হাতকে পৃথক্ করে গ্রহণ করা বোঝাচ্ছে । তাই ‘করে’ পদটিতে অবচ্ছেদে সপ্তমী বিভক্তি হয়েছে ।

অতিরিক্ত উদাহরণ – মাং গলে বৃদ্ধা নয় ।

ভাবে সপ্তমী বিভক্তি

সূত্র – যস্য চ ভাবেন ভাবলক্ষণম্ ।

একটি ক্রিয়ার কাল দ্বারা অপর একটি ক্রিয়ার কাল নিরূপিত হলে যার উপর পরের ক্রিয়া নির্ভর করে, সেই ক্রিয়ার কর্তায় বা কর্মে সপ্তমী বিভক্তি হয় ।

উদাহরণ – সূর্যে উদিতে পদ্মং প্রকাশতে ।

অনাদরে ষষ্ঠী বা সপ্তমী বিভক্তি

সূত্র – ষষ্ঠী চানাদরে ।

ভাবে সপ্তমীর স্থলে অনাদর বা উপেক্ষা বোঝালে যাকে অনাদর করা হয় তাতে ষষ্ঠী বা সপ্তমী বিভক্তি হয় ।

উদাহরণ – রুদতঃ পুত্রস্য মাতা জগাম । রুদতি পুত্রে মাতা জগাম ।

নির্ধারণে ষষ্ঠী বা সপ্তমী বিভক্তি

সূত্র – যতশ্চ নির্ধারণম্ ।

এক জাতীয় অনেকের মধ্যে থেকে জাতি, গুণ, ক্রিয়া, সংজ্ঞা বা নাম দ্বারা একটিকে বেছে নেওয়া বা পৃথক্ করাকেই বলা হয় নির্ধারণ । যা থেকে নির্ধারণ করা হয় তাতে ষষ্ঠী বা সপ্তমী বিভক্তি হয় ।

উদাহরণ – (i) কবিষু কালিদাসঃ শ্রেষ্ঠঃ । (ii) কবীনাং কালিদাসঃ শ্রেষ্ঠঃ ।

নিমিত্তার্থে সপ্তমী বিভক্তি

সূত্র – নিমিত্তাৎ কর্মযোগে ।

যা পাবার জন্য কোনও ক্রিয়া অনুষ্ঠিত হয়, তা হল নিমিত্তবোধক শব্দ বা হেতু । কিন্তু এখানে নিমিত্ত শব্দের অর্থ হল ক্রিয়ার ফল । ক্রিয়ার কর্মের সাথে সাক্ষাৎ সম্বন্ধ থাকলে নিমিত্তবাচক শব্দে সপ্তমী বিভক্তি হয় ।

উদাহরণ – চর্মণি দ্বীপিনং হন্তি ।

প্রশংসা অর্থে সাধু ও নিপুণ শব্দের যোগে সপ্তমী বিভক্তি হয় ।

সূত্র – সাধুনিপুণাভ্যাম্ অর্চায়াম্ অপ্রতেঃ ।

প্রশংসা করা অর্থে সাধু ও নিপুণ শব্দের যোগে সপ্তমী বিভক্তি হয় ।

উদাহরণ – স গণিতে সাধুঃ ।

আপনি যদি করণ কারক ছাড়া অন্য করক বিভক্তি গুলি দেখতে চান তা হলে নিম্নে লিংক গুলিতে ক্লিক করুণ

আপনি যদি সমস্ত কারকের মডেল সেট দেখতে চান তাহলে নিম্নে ক্লিক করুণ

Leave a Comment