Sanskrit Bhojan Mantra (সংস্কৃত ভোজন মন্ত্র)

আজ আমরা সংস্কৃত ভোজন মন্ত্র (Sanskrit Bhojan Mantra), অন্ন গ্রহণ করার আগে সংস্কৃত ভোজন মন্ত্র, সংস্কৃত ভোজন মন্ত্র করার উপযোগিতা।

বাংলা অর্থসহ সংস্কৃত ভোজন মন্ত্র (Sanskrit Bhojan Mantra)

সংস্কৃত ভোজন মন্ত্রের গুরুত্ব

আজকের বিজ্ঞানও প্রমাণ করে যে আপনি যে পরিবেশেই খাবার খান না কেন, সেই পরিবেশের সাথে সম্পর্কিত রাসায়নিক আপনার শরীরে উৎপাদিত হয়। খাওয়ার সময় আপনি যদি রেগে যান তাহলে আপনার শরীরে ক্ষতিকর রাসায়নিক জন্মায়। আর আপনি যদি খাওয়ার সময় শান্ত থাকেন তাহলে আপনার শরীরে উপকারী রাসায়নিক উৎপন্ন হয়।

এই কারণেই, সনাতন সংস্কৃতিতে, খাবার খাওয়ার আগে ভোজন মন্ত্র পাঠ করাকে উপকারী বলা হয়েছে। আপনি যখন ভোজন মন্ত্র জপ করেন তখন আপনার মন শান্ত হয়। এবং আপনি খাবারের প্রতি শ্রদ্ধায় পরিপূর্ণ, যার কারণে আপনি একাগ্র চিত্তে খাবার উপভোগ করতে সক্ষম হন। যার ফলে বিষাক্ত রাসায়নিক আপনার শরীরে উৎপাদিত হয় না এবং আপনি একটি সুখী জীবন কাটান।

(১) সংস্কৃত ভোজন মন্ত্র

সংস্কৃত ভোজন মন্ত্র

ওঁ ব্রহ্মার্পণং ব্রহ্মহর্বিব্রহ্মাগ্নৌ ব্ৰহ্মণা হুতম্ ।

ব্রহ্মৈব তেন গন্তব্যং ব্রহ্মকর্মসমাধিনা ।।

বাংলা অর্থ

কর্মযজ্ঞে অর্পণ, হবি এবং অগ্নি সবই ব্রহ্ম। যিনি আহুতি দেন তিনিও ব্রহ্ম। আহুতি দ্বারা ব্রহ্মকর্ম সমাধানের প্রাপ্য ফল ও ব্রহ্ম।

(২) সংস্কৃত ভোজন মন্ত্র

ওঁ সহনাববতু সহনৌভুনক্তু সহবীর্যং করবাবহৈ।

তেজস্বিনাবধীতমস্তু মা বিদ্বিষাবহৈ ।।

ওঁ শান্তিঃ শান্তিঃ শান্তিঃ ।।

বাংলা অর্থ

আমাদের অধীত বিদ্যা আমাদের দুইজনকেই (আচার্য্য ও শিষ্য) রক্ষা করুক এবং পালন করুক। আমরা দুইজনেই যেন পরস্পর সহযোগিতায় কর্ম্মক্ষেত্রে বীর্য প্রকাশ করতে সমর্থ হই। আমাদের বিদ্যা তেজঃসম্পন্ন হউক। আমরা যেন পরস্পর বিদ্বেষ পোষণ না করি।

অন্ন গ্রহণ করার আগে সংস্কৃত ভোজন মন্ত্র

আমরা যা কিছুই করি না কেন তা ভগবানের ইচ্ছা। ভগবানের ইচ্ছা ছাড়া কোনো কিছুই সম্ভব না। তিনি চালাচ্ছেন বলেই আমাদের জীবন সরলভাবে চলছে। প্রতিদিনের জীবনে আমাদের তিনটি জিনিস প্রয়োজন- অন্ন, বস্ত্র ও বাসস্থান। আমরা যদি প্রতিদিন অন্ন খাওয়ার আগে নিচের মন্ত্রটি বলে অন্ন খাই তাহলে জীবনে কখনোও অন্নের অভাব হবে না। কারণ হিসেবে মনে করা হয় লক্ষ্মীদেবীর কৃপা আছে বলেই আমরা দুবেলা দুমুঠো খেতে পাই। অন্ন গ্রহণ করার আগে সংস্কৃত ভোজন মন্ত্রটি হল-

ওম্ অন্নপতেন্নস্য নো দেহ্যনমীবস্য শুষ্মিনঃ।

প্র প্র দাতারং তারিষ ঊর্জং নো ধেহি

দ্বিপদে চতুষ্পদে।। [যজুর্বেদ ১১-৮৩]

অন্ন গ্রহণ করার আগে সংস্কৃত ভোজন মন্ত্রের বাংলা অর্থ

হে অন্নের স্বামী। তুমি আমাদের সুস্বাস্থ্যযুক্ত ও শক্তিশালী অন্ন দান করো। দীন, দুঃখী ও অভাবে পীড়িত মানুষদের অর্থ দান করে তাদের প্রতি কৃপা দৃষ্টি দিন। দ্বিপদী মানুষ, পরিবার ও চতুষ্পদী প্রাণী ইত্যাদিদের জন্য অন্ন, বল ও পরাক্রম দান করুণ।

মনে রাখবেন: এই মন্ত্র উচ্চারণে যদি একান্তই অসুবিধে হয়, তাহলে খেতে বসার আগে অবশ্যই শ্রী শ্রী ভগবানের নাম নিয়ে তার পর খাবার খাওয়া শুরু করতে হবে।

অন্ন গ্রহণ করার পর শেষ সংস্কৃত ভোজন মন্ত্র

অন্ন গ্রহণ করার পর সংস্কৃত ভোজন মন্ত্রটি হল-

“ওম মোঘমন্ত্রং বিন্দতে অপ্রচেতাঃ সত্যং ব্রবীমি বধ উৎস তস্য।

নায়মণং পুষ্যতি নো সখায় কেবলাঘো ভবতি কেবলাদী।। [ঋগ্বেদ ১০-১১৭]

অন্ন গ্রহণ করার পর শেষ সংস্কৃত ভোজন মন্ত্রের বাংলা অর্থ

মূর্খ ব্যক্তি অন্নকে ব্যর্থপ্রাপ্ত করছে, তারা অন্নের ঘাতক, কারণ যারা অন্নকে প্রাপ্ত করার পরে সমাজ ও রাষ্ট্রকে কিছু দেয় না তথা নিজ বন্ধুবৰ্গকে অন্ন দান করে না, কেবল একাই উপভোগ করে বস্তুতঃ সে পাপযুক্ত উপভোগ করে। হে প্রভু আমাদের পর্যাপ্ত অন্ন দান করুণ যেন আমরা সবাই মিলে মিশে উপভোগ করতে পারি।

আরোও পড়ুন

সংস্কৃত একাত্মতা মন্ত্র

Leave a Comment